বরিশালে দলিল লেখক হত্যা মামলায় ১০ মাসেও আসামী গ্রেফতার হয়নি ॥ ন্যায় বিচার পেতে পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন

বরিশাল সদর উপজেলার বুখাইনগর রাজার চর গ্রামের বাসিন্দা ও দলিল লেখক মোঃ রেজাউল করিম রিয়াজকে হত্যার ঘটনায় ১০ মাসেও ২ আসামীকে গ্রেফতার করতে না পারায় ন্যায় বিচার নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন নিহতের পরিবার। বুধবার বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির কার্যালয়ের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এ সংশয় প্রকাশ করে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহতের ভাই মনিরুল ইসলাম রিপন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নিহত রিয়াজের মামা আব্দুল হাই মন্টু, খালাতো ভাই শাখাওয়াত সিকদার।
লিখিত সংবাদ সম্মেলনে মনিরুল ইসলাম রিপন বলেন, ২০১৯ সালের ১৮ এপ্রিল দিবাগত রাতে আমার ছোট তাই রেজাউল করিম রিয়াজ কে (দলিল লেখক) পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনার পরদিন বরিশাল কোতয়ালি মডেল থানায় আসামীদের নাম অজ্ঞাত রেখে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন তিনি। এ হত্যাকান্ডের অভিযোগে মৃত রেজাউল এর স্ত্রী আমেনা আক্তার লিজা কে পুলিশ আটক করলে ১৬৪ ধারা জবানবন্দিতে তিনি বলেন, তার স্বামীর সহকারী মােঃ মাসুম হােসেন দা দিয়ে কপিয়ে এ হত্যার ঘটনা ঘটায় এবং মাসুমের সাথে থাকা অন্য এক ব্যক্তি বালিশ দিয়ে মুখ চেপে ধরে। আর ঘটনার পর থেকেই মৃত রেজাউলের দুই জন সহকারী মাসুম ও হাবিব পলাতক রয়েছে। এখন পর্যন্ত ওই দুই জনকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়নি। তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বাস মাসুম ও হাবিবকে গ্রেফতার করা হলেই আমার ভাইয়ের হত্যাকান্ডের মূল রহস্য বেড়িয়ে আসবে। একই সাথে মাসুমের সাথে আমেনা আক্তার লিজার (মৃত রেজাউলের স্ত্রী) পরকিয়ার সম্পর্কের বিষয়টিও পরিষ্কার হয়ে উঠবে। তিনি বলেন, এলাকার জনমুখে ছড়িয়ে রয়েছে পরকিয়া প্রেমের কারণেই এই পরিবল্পিত হত্যার ঘটনা ঘটেছে এবং এ হত্যাকান্ডের সাথে আমেনা আওার লিজা জড়িত রয়েছে।
এ হত্যা মামলার সুষ্ঠু তদন্ত ও পলাতকদের দ্রুত গ্রেফতারের জন্য তিনি প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি। তবে এ ঘটনায় পলাতক জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করা হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ফিরোজ আল মামুন।