বরিশালে বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে দাঙ্গা হাঙ্গামার ঘটনায় তিনটি ভোটকেন্দ্রে ভোট গ্রহন স্থগিত ॥ কেন্দ দখলের অভিযোগ

বরিশাল বিভিন্ন কেন্দ্রে দাঙ্গা-হাঙ্গামার ঘটনায় তিনটি ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহন স্থগিত ও আরো বেশ কয়েকটি কেন্দ্র দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদর উপজেলার আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী হাবিবুর রহমান খোকন’র সমর্থকরা সকাল ৯ টার দিকে ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করে জোর করে ব্যালট বক্স ও ব্যালট পেপারসহ বিভিন্ন সরঞ্জমাদী ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আব্দুল মান্নান ওই কেন্দ্রের ভোট গ্রহন বন্ধ ঘোষনা করেন।
সকাল ১০ টার দিকে একই ঘটনা ঘটে উজিরপুর উপজেলার হরতা ইউনিয়নের জামবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্রে। আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হরেন রায়ের সমর্থকরা ব্যালট পেপার ছিনতাই করলে ওয়াকার্স পার্টি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী বিমল বয়াতির সমর্থকদের সাথে সংঘর্ষ হয়। এতে সেখানে ৫ জন আহত হয়। পরে রিটানিং অফিসার মোহাম্মাদ শদিুল ইসলাম সেখানকার ভোট কেন্দ্র বন্ধ ঘোষনা করেন। এছাড়া উজিরপুরের সাতলা ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী সতন্ত্র প্রার্থী সোহাগ মোল্লা সুষ্ঠু নির্বাচন হয় না বাদী করে ভোট বর্জনের ঘোষনা দিয়েছেন। বাবুগঞ্জ উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ভোট কেন্দ্রের সামনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী নূরে আলমের সমার্থকদের সাথে ওয়াকার্স পার্টির আতাউর রহমান বিশ্বাসের সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনায় ৫ জন আহত হয়। এ ঘটনায় রিটানিং অফিসার মো. কামাল হোসেন ঐ কেন্দ্রের ভোট গ্রহন বন্ধ ঘোষনা করেন।
কাশিপুর ইউপি’র সবকটি কেন্দ্রে চেয়ারম্যান পদে দেখিয়ে সিল মেরে ভোট প্রদানের অভিযোগ করেছে বিএনপি’র চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ হোসেন সিকদার। এ ইউনিয়নের বিহঙ্গল সহ অপর কেন্দ্রগুলোতে নৌকা প্রতীকের কর্মীরা ভোটারদের দেখিয়ে সিল মারাচ্ছেন বলে তিনি জানান।
এছাড়া সদর উপজেলার চাঁনপুরা ৫নং হিজলতলা ১১৯নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ব্যালট ছিনতাইয়ের ঘটনায় ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন স্থগিত ছিলো। শায়েস্তাবাদের কামারপাড়া কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর কর্মীরা কেন্দ্র দখল করে বিএনপি প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের শ্যামপুর, বাউকাঠি, আউলিয়া, নন্দপাড়া, কালিগঞ্জ ও রাজাপুরসহ সবকটি ইউনিয়নের ভোট কেন্দ্র গুলো আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সমর্থকদের দখলে চলে গেছে বলে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা অভিযোগ করেছেন। রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিবর মোল্লা অভিযোগ করেন বলেন, বিএনপির কোন প্রার্থী এজেন্টকে ভোট কেন্দ্রে থাকতে দেয়া হচ্ছে।
আগৈলঝড়া উপজেলার বাকাল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী বিপুল দাস ও তার সমর্থকরা সবকটি কেন্দ্র থেকে অন্যান্য প্রার্থীদের এজেন্ট বের করে দিয়ে ভোট কেন্দ্র দখল করেছে বলে অভিযোগ করে ভোট বর্জনের ঘোষনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী লাবন্য আক্তার। এছাড়া গৌরনদী, মুলাদী, হিজলা ও বানারীপাড়ায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীর ও তাদের সর্মাথকদের বিরুদ্ধে ভোট কেন্দ্র দখলের অভিযোগ করেছে বিএনপি প্রার্থীরা।