মাছের মেলায় একটি মাছের কাছে বিক্রেতা

মাছের মেলায় উঠেছে দেড় মণ ওজনের বাগাড়টি। বিক্রেতা দাম হেঁকেছেন দেড় লাখ টাকা। শ্রীমঙ্গল বাজার, মৌলভীবাজার, ১৪ জানুয়ারি। সেই মেলায় উঠেছে বিভিন্ন ধরনের মাছ। তবে মেলায় আসা প্রায় প্রত্যেকে একবার হলেও এক বিক্রেতার একটি মাছের কাছে গিয়ে দাঁড়াচ্ছেন। শ্রীমঙ্গলের মাছ বাজারে দিনব্যাপী মাছের মেলায় মূল আকর্ষণই হয়ে ওঠে বিশাল আকৃতির একটি বাগাড়।

মাছটির বিক্রেতা হাফিজ মিয়া বলেন, বাগাড়টি মেঘনা নদী থেকে ধরা হয়েছে । ওজন ৬০ কেজি । এর দাম উঠেছে সর্বোচ্চ ৭০ হাজার টাকা। তবে তাঁর প্রত্যাশা তিনি আশানুরূপ দামই পাবেন।

হাফিজ মিয়ার মাছের খানিকটা দূরেই আরেকটি বাগাড়ের দিকেও ছিল ক্রেতাদের আকর্ষণ। লিমন মিয়া নামের এক বিক্রেতা ৩০ কেজি ওজনের ওই মাছ তুলেছিলেন বিক্রির জন্য। এই মাছের দাম হাঁকা হচ্ছিল ৮০ হাজার টাকা।

ছোট-বড় আকৃতির নানা ধরনের মাছ আনা হয়েছে মেলায়। রুই, কাতলা, ব্রিগেড, সিলভার কার্প, বোয়াল, বাগাড়, চিতল, আইড়সহ বিশাল আকৃতির বিভিন্ন মাছ সাজিয়ে রেখেছেন বিক্রেতারা। দরদাম ঠিক হলে অনেকে ক্রেতা আস্ত মাছ কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। অনেকে আবার বিক্রেতাদের দিয়ে মাছ কেটে টুকরা করে নিয়ে যাচ্ছেন। এবারের মাছের মেলায় তরুণদের উপস্থিতি বেশি লক্ষ করা গেছে। বেশির ভাগ তরুণ বিক্রেতাদের কাছে বড় বড় মাছের নাম জিজ্ঞেস করছেন, মুঠোফোনে ছবি তুলে নিচ্ছেন।

মাছ বাজারে এক তরুণ বলেন, ‘মাছ কিনতে ও দেখতে মেলায় এলাম। সারা বছর তো এ ধরনের মাছের মেলা হয় না। এত বড় বড় মাছ চোখেও পড়ে না। মেলায় বড় বড় মাছ উঠেছে শুনে দৌড়ে এলাম।’

শ্রীমঙ্গল মাছ বাজার কমিটির সহসভাপতি বলেন, পৌষসংক্রান্তি উপলক্ষে শ্রীমঙ্গল মাছ বাজারে বিভিন্ন জায়গা থেকে বিক্রেতারা বড় বড় মাছ নিয়ে এসেছেন। আর এসব মাছ দেখতে আসা মানুষের ভিড়ে বাজার এখন উৎসবমুখর হয়ে উঠেছে। একসঙ্গে এত বড় মাছ সারা বছর বাজারে চোখে পড়ে না। তিনি আরও বলেন, গত বছরের তুলনায় এবারের মেলায় মাছ একটু কম। দিনব্যাপী এই মেলায় শ্রীমঙ্গল উপজেলার বাইরে থেকেও অনেকে মাছ কিনতে আসেন।