হেফাজত কর্মী নিহতের জের ॥ বরিশালে দুটি বাসে অগ্নিসংযোগ -ভাংচুর

বরিশাল টুডে ॥ ঢাকায় হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীদের সাথে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের সংঘর্ষে বরিশাল বি.এম কলেজের মাস্টার্সের শেষবর্ষের ছাত্র ও হেফাজত কর্মী ইব্রাহিম খলিল নিহত হওয়ার প্রতিবাদে সোমবার নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল করে তান্ডব চালিয়েছে হেফাজত ও বিএনপির নেতা-কর্মীরা। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে নগরীর নতুনবাজার এলাকায় লাঠিসোঠা নিয়ে মিছিল সহকারে হেফাজত ও বিএনপির কর্মীরা ভাংচুর ও তান্ডব চালায়। তারা একটি যাত্রীবাহি বাস ও তিনটি আটোরিকশা ভাংচুর করে। এছাড়া বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের গৌরনদীতে একটি ও আগৈলঝাড়ায় আরেকটি বাসে অগ্নিসংযোগ করে সম্পূর্ণ ভস্মিভূত করা হয়।
সকাল সাড়ে আটটার দিকে নগরীর কাউনিয়া এলাকার বেগম ফজিলাতুন্নেছা বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সম্মুখে হেফাজত কর্মী ইব্রাহিমের জানাজা শেষে এ্যাম্বুলেন্সযোগে তার লাশ গ্রামের বাড়ি কলাপাড়ায় পাঠানো হয়। এরপরই হেফাজত ও বিএনপির কর্মীরা নগরীতে তান্ডব চালায়। এসময় পুলিশ তাদের ধাওয়া করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশের ধাওয়ার মুখে দৌঁড়ে পালাতে গিয়ে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। পুলিশ জানায়, সোমবার ভোর রাতে বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের গৌরনদীর ভুরঘাটায় ইলিশ পরিবহন ও আগৈলঝাড়ার পয়সারহাট বাসষ্ট্যান্ডে শুভেচ্ছা নামের আরেকটি লোকাল বাসে অগ্নিসংযোগ, নগরীর নতুনবাজার এলাকায় সেবা পরিবহন নামের একটি বাস ভাংচুর করে হেফাজত ও বিএনপির কর্মীরা। অগ্নিকান্ডে শুভেচ্ছা পরিবহনের চালক আব্দুল হক ঘুমন্ত অবস্থায় থাকায় অগ্নিদগ্ধ হয়। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এসব ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।
নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস মালিক সমিতি সভাপতি আফতাব হোসেন জানান, হেফাজত ও বিএনপির সমর্থকেরা ইলিশ এবং শুভেচ্ছা নামের দুটি বাসে অগ্নিসংযোগ করে সম্পূর্ণ ভস্মিভূত, সেবা পরিবহন নামের একটি বাসে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও শুভেচ্ছা পরিবহনের বাস চালক আব্দুল হক অগ্নিদগ্ধ হওয়ার প্রতিবাদে সোমবার সকাল সাড়ে দশটা থেকে বাস ধর্মঘটের ডাক দেন বরিশালে বাস মালিক সমিতি ও পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দরা। পরবর্তীতে জেলা পুলিশ সুপার একেএম এহসান উল্লাহ তাদের নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করার পর দুপুর দেড়টার দিকে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।
পুলিশ সুপার একেএম এহসান উল্লাহ জানান, যেকোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বরিশালসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার গুরুত্বপূর্ন স্থান ও বিভিন্ন মাদ্রাসার পাশ্ববর্তী এলাকায় ব্যাপক পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।