ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নৌকার বিরোধিতা করে বহিঃস্কৃত সেই নেতা কেদারপুরে আওয়ামী মনোনয়ন চায়!

বিশেষ প্রতিনিধি:শাহজাহান আকন্দ বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। পেশায় তিনি স্বর্ন ব্যবসায়ী। ঢাকায় বায়তুল মোকারম এলাকায় স্বর্নালী জুয়েলার্সসহ পাঁচটি দোকানের মালিক তিনি। তাই এলাকায় তিনি সোনা কোম্পানি নামে পরিচিত। সোনা কম্পানি হয়ে ওঠার পিছনের ইতিহাস অনেক লম্বা। সে প্রসঙ্গে আসার আগে রাজনৈতিক জীবন ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে তার অবস্থান সম্পর্কে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন পাঠকদের উদ্দিশ্যে তুলে ধরা হলো:
আসছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আলোচিত কেদারপুর ইউনিয়ন থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করে আবেদন জমা দেওয়ার পর থেকেই রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনা-সমালোচনার কেন্দ্র বিন্দু হয়ে ওঠেন শাহজাহান আকন্দ। বিগত একযুগ ধরে তিনি কেদারপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি পদে থাকলেও নেই কোন দৃশ্যমান কর্মকান্ড। এই এক যুগে সাংঠনিক কিংবা জাতীয় কোন প্রোগ্রামের কোথাও তাকে দেখা যায় নি। তৃন্যমূল নেতাকর্মীরা জানায়, তিনি সারা বছর ঢাকায় ব্যবসায়ের কাজে ব্যস্ত থাকেন। আন্দোলন সংগ্রামে তাকে পাওয়া যায় না। নির্বাচন আসায় সত্তরোর্ধ বৃদ্ধ এই ব্যবসায়ী এখন নৌকার মনোনয়ন চেয়ে বেড়ান।
২০১৬সালের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে সরাসরি অবস্থান নেওয়ায় তিনি সভাপতি পদ থেকে বহিস্কার হন। দলীয় সূত্র জানায়, গত ইউপি নির্বাচনে শাহজাহান আকন্দের মামাতো ভাই আতাহার বিশ্বাস আওয়ামী মনোনয়ন চেয়ে না পাওয়ায় ওয়ার্কার্স পার্টিতে যোগদান করে হাতুরি প্রতীক নিয়ে নৌকার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্ধীতা করেন। আর ওই নির্বাচনে শাহজাহান আকন্দ হাতুরি প্রতীকের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেন। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল হক নিলু’র স্বাক্ষরিত চিঠির মাধ্যমে তিনি কেদারপুর ইউনিয়ন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়কের দায়িত্ব পান। কেদারপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হয়ে দলীয় সীদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে হাতুরি প্রতীকের নির্বাচন পরিচালনা করায় ১৪ই মার্চ ২০১৬ তারিখে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় উপজেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষরিত প্যাডে তাকে দলীয় শৃংখলা ভংঙ্গের দায়ে বহিস্কার করা হয়। উল্লেখিত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নুরে আলম বেপারি বলেন, গত নির্বাচনে শাহজাহান আকন্দ দলীয় সীদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে ওয়ার্কার্স পার্টির নির্বাচন পরিচালনা করায় বহিস্কার হয়েছিলেন। এদিকে সাম্প্রতিক সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ে তিনি নিজেকে দলের জন্য নিবেদিত প্রান দাবি করায় আওয়ামী নেতাকর্মীদের কৌতুকের খোরাক হয়েছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ঈদ ও কোরবানি ছাড়া তাকে এলাকায় দেখা যায় না। তিনি মনোনয়ন পেলে আওয়ামীলীগ থেকে সাধারণ জনগন আস্থা হাড়িয়ে ফেলবে। এব্যাপারে সাংবাদিকরা তার সাথে কথা বলতে গেলে তিনি ব্যস্ততা দেখিয়ে কথা বলতে রাজি হয়নি।