ঈদুল আজহা উপলক্ষে এবার আর বরিশালে বসছে না অস্থায়ী পশুর হাট

বরিশালে এবার আর বসছে না ঈদুল আজহা উপলক্ষে অস্থায়ী পশুর হাট। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে ঈদুল আজহায় বরিশাল জেলা ও মহানগরীতে কোরবানির পশুরহাটের সংখ্যা অর্ধেকে নেমে এসেছে। এবার বরিশাল নগরীর স্থায়ী ২টি সহ মোট ৩৭ টি স্থায়ী কোরবানির পশুর হাট বসবে। প্রতি বছর স্থায়ী হাট ছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় কোরবানি উপলক্ষে অস্থায়ী পশুর হাট বসলেও করোনার কারণে প্রশাসনের কঠোর বিধি আরোপ এবং উদ্যোক্তাদের আগ্রহ না থাকায় অস্থায়ী হাট গুলো বসছে না। শুধুমাত্র স্থায়ী হাটগুলোতেই কোরবানির পশু কেনাবেচা করা যাবে। আগামী ২৫ জুলাই থেকে বরিশাল নগরীতে কোরবানির পশুর হটে কেনাবেচা শুরু হবে বলে জানিয়েছে কতৃপক্ষ।
বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) হাটবাজার শাখার পরিদর্শক মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, বরিশাল নগরীতে স্থায়ী পশুরহাট আছে দুটি। স্থায়ী হাট দুটি হল বাঘিয়া ও হাটখোলা কসাইখানা। প্রতি বছর ঈদুল আজহায় স্থায়ী পশুরহাট ছাড়া একাধিক অস্থায়ী হাটের অনুমোদন দিত বিসিসি। গত বছরও নগরীতে অস্থায়ী ভাবে ৪টি হাট বসেছিল। এবার গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অস্থায়ী হাটের অনুমোদনের জন্য বিসিসিতে কেউ আবেদন করেনি। তবে ঈদুল আজহার ৫দিন আগে দুটি স্থায়ী হাটে পশু বেচাকেনা শুরু হবে। বিসিসির হাটবাজার পরিদর্শক বলেন, তার আগে অস্থায়ী হাটের আবেদন পাওয়া গেলে অনুমোদনের বিষয়টি উর্ধ্বতন কতৃপক্ষ বিবেচনা করা হবে। করোনা ভাইরাসের সংকটকালীন কারণে স্থায়ী দুটি পশুরহাট ইজারা দিতে না পাড়ায় বিসিসি সরাসরি স্থায়ী হাট দুটি পরিচালনা করবে বলে জানিয়েছেন এই পরিদর্শক। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর বরিশাল জেলার ১০ উপজেলায় ঈদুল আজহায় পশুর হাট বসবে ৩৫ টি। গত বছর এর সংখ্যা ছিল ৬৬ টি। এবার জেলার প্রতি উপজেলার স্থায়ী হাটগুলোতেই শুধু মাত্র ঈদুল আজহায় পশুর হাট বসানোর অনুমতি দেয়া বয়েছে।
জেল প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান জানান, এ বছর ঈদুল আজহায় পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যে কারণে বিগত সময়ের চেয়ে এবার কম সংখ্যক পশুর হাট বসবে। সব কটি হাটে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করার জন্য উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।