ঈদ উল আযহা উপলক্ষে লঞ্চের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু

ঈদ উল আযহাকে কেন্দ্র করে বৃহষ্পতিবার থেকে কঠোর লকডাউন শিথিলে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার খবরে বরিশালে লঞ্চের টিকিট কাউন্টারগুলোতে উপচে পড়া ভীর ছিলো। ঈদের ছুটিতে গন্তব্যে যেতে আগাম টিকিট নিতেই এই ভীর ছিলো। লঞ্চ কতৃপক্ষও শুরু করেছে আগাম টিকিট বিক্রি। তবে ঈদ উপলক্ষে কেন্দ্রীয়ভাবে লঞ্চের স্পেশাল সার্ভিসের কোনো খবর পায়নি বরিশালের লঞ্চ মালিকরা।
অ্যাডভেঞ্চার লঞ্চ কোম্পানির চেয়ারম্যান ও বরিশাল মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্সের সভাপতি নিজাম উদ্দিন মৃধা বলেন, ঈদকে ঘিরে লকডাউন শিথিল হওয়ার খবরের পরপরই দক্ষিনাঞ্চলের নৌ-পথের বিভিন্ন রুটের লঞ্চগুলোর আগাম টিকিট যাত্রীপর্যায়ে দেয়া শুরু হয়েছে। মহামারি করোনার কারনে মোবাইলের মাধ্যমে ঈদের আগাম টিকেট যাত্রী পর্যায়ে সরবরাহ করা হচ্ছে। পাশাপাশি যারা কাউন্টারে এসে হাজির হচ্ছেন, চাহিদা অনুযায়ী সেইদিনের কেবিন খালি থাকলে তাও দেয়া হচ্ছে। এবারে আর ¯িøপ সংগ্রহ করে বাছাই করে কেবিন দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।
অ্যাডভেঞ্চার লঞ্চ কোম্পানির কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা ইয়াসির হোসেন বাপ্পি জানান, এবারে সিলিপের মাধ্যমে ঈদের আগের ও পরের কেবিনের বুকিং দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা বিধায় যারা আগে চাচ্ছেন তাদেরই দেয়া হচ্ছে। চাহিদা বেশি থাকায় শেষ পর্যন্ত সবাইকে সমানভাবে কেবিন দেয়া সম্ভব হবে না বলেও জানান তিনি। সুরভী লঞ্চ কোম্পানীর কাউন্টার স্টাফ তানভীর বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা লঞ্চ চালনার জন্য প্রস্তুত আছি। এক্ষেত্রে সরকার নির্ধারিত ভাড়ায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রীরা ঢাকা-বরিশাল রুটে যাতায়াত করতে পারবেন। ঢাকা-বরিশাল রুটের লঞ্চগুলোর প্রতি কেবিনের ভাড়া সাধারণ সময়ের থেকে ২ শত টাকা বাড়বে। সেইসাথে ডেকের ভাড়াও বাড়ছে। এদিকে বরিশাল লঞ্চ টার্মিনালে লঞ্চ স্টাফদের দেখা গেছে লঞ্চ ধোয়া মোছার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে।