উজিরপুরের সাথে ৪ ইউনিয়নের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ধামুরা ব্রিজ ভেঙে ভোগান্তিতে লক্ষাধীক মানুষ

বরিশাল থেকে সাতলা সড়কের ধামুরা ব্রিজ ভেঙে যাওয়ায় উজিরপুরের সাথে ৪টি ইউনিয়নের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। চরম ভোগান্তিতে লক্ষাধিক মানুষ। ৯ মার্চ সকালে ধামুরা নদীর উপর নির্মিত ৬৬ মিটার দৈর্ঘ্য, সাড়ে ৪ মিটার প্রস্থ আয়রন ব্রিজটি হঠাৎ করে পূর্ব প্রান্ত থেকে নদীর মধ্যে পড়ে যায়। অল্পের জন্য বেঁচে যায় ব্রিজের উপরে থাকা যানবাহন ও সাধারণ মানুষের জীবন। স্থানীয় জনসাধারণ ও ব্যবসায়ীরা জানান ২০০১ সালে উজিরপুর থেকে সাতলা পর্যন্ত একমাত্র সড়কে ধামুরা নদীর উপর ব্রিজটি সড়ক ও জনপথ বিভাগ তৈরী করে। পরে ব্রিজের মাঝে ও বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্ত হওয়ায় উপজেলা প্রকৌশল বিভাগ ব্রিজটি কয়েকবার মেরামত করে। চার মাস আগে ব্রিজের পূর্ব পাশে ঝুকিপূর্ন হওয়ায় বরিশাল এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ঝুকিপূর্ণ ব্রিজ হিসেবে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেন। এগুলোকে উপেক্ষা করে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভারী যানবাহন, প্রতিনিয়ত শত শত বাস ট্রাক ওই ব্রিজ থেকে সাতলা, হারতা, জল্লা, ওটরা সহ বিভিন্ন স্থানে মালামাল ও লোকজন বহন করায় দ্রুত পূর্ব প্রান্ত ভেঙে নদীতে পড়ে যায়। উজিরপুর এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী মীর মাহিদুল ইসলাম প্রথমে এ বিষয়ে কিছু বলতে না চাইলেও এক পর্যায় তিনি বলেন ব্রিজটি অনেক পুরাতন ও ঝুঁকিপূর্ন একারণে কয়েকমাস পূর্বে ব্রিজটি মেরামতের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। ভারী যানবাহন চলাচলের কারনেই ব্রিজটি দ্রুত ভেঙে পড়ে। দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ সান্টু মোল্লা জানান ধামুরা একটি ঐতিহ্যবাহী বন্দর । এই বন্দরকে ঘিরে ৮টি ব্রিজটি রয়েছে প্রতিটি ব্রিজ অত্যন্ত ঝুঁজিপূর্ন। একটি ব্রিজ চার বছর আগে ভেঙে পড়ায় ব্যবসায়ীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। বর্তমানে উজিরপুরে চারটি ইউনিয়নের সাথে যোগাযোগের একমাত্র ব্রিজ ভেঙে পড়ায় এই ইউনিয়নের জনসাধারণ যোগাযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।