গৌরনদীতে রেজাউল বাহিনী মামলা উত্তেলনের জন্য বাদিকে প্রান নাশের হুমকি

গৌরনদী প্রতিনিধি ॥ বরিশালের গৌরনদী উপজেলার দুধর্ষ সন্ত্রাসী ও একাধিক হত্যা মামলার আসামি সিকদার শফিকুল রহমান রেজাউল ও তার বাহিনীদের বিরুদ্ধে দেয়া চাঁদাবাজি মামলা প্রত্যাহারের জন্য নানা ধরনের ভয়ভীতিসহ জীবন নাশের হুমকি প্রদান করেছে। এঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে মঙ্গলবার গৌরনদী থানায় একটি সাধারন ডায়রী করেছে। রেজাউল ও তার বাহিনীর হুমকির মুখে ব্যবসায়ীর আলমগীর হোসেন মুন্সীর স্ত্রী ও সন্তানরা অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে।
ব্যবসায়ী, পুলিশ ও এজাহার সুত্রে জানাগেছে, বহুল আলোচিত চতুর্থ স্ত্রী অন্তঃস্বত্তা নাদিয়াকে হত্যা করে লাশগুমের সময় ঢাকায় পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার গৌরনদীর চাঞ্চল্যকর পিতৃ হত্যাকারী ও দুধর্ষ সন্ত্রাসী সিকদার শফিকুর রহমান রেজাউল। দীর্ঘ আট মাস কারাভোগের পর অতিসম্প্রতি জামিনে বেরিয়ে আসে খুনী রেজাউল। টরকী বন্দরের কোহিনুর কেমিক্যোল লিঃ ও আরএফএলের স্থানীয় পরিবেশক আলমগীর হোসেন মুন্সী অভিযোগ করেন, সন্ত্রাসী রেজাউল সিকদার ও তাদের ওয়ারিশদের কাছ থেকে টিনসেডের বিল্ডিংসহ ১০ শতক জমি ক্রয় করেন। পরবর্তী ওই জমিতে সে নিজে কোহিনুর কেমিক্যোল লিঃ গোডাউন ও অফিস ঘর নির্মান করে ব্যবসা পরিচালনা করে আসতেছে। হত্যা মামলা থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে গত ১৯ এপ্রিল রেজাউল ও তার বাহিনী ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। এক সপ্তাহের মধ্যে দাবিকৃত চাঁদা না দিলে তার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান গুড়িয়ে তাকেসহ তার পরিবারবর্গকে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেয়। শনিবার সকালে রেজাউল ও তার সহযোগী হারুন বেপারী ও পুসনজীদ গোস্বামী দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তার গোডাউনে হাজির হয়। এ সময় তাদের ধার্যকৃত চাঁদা দাবি করে। আলমগীর দিতে অপরগতা প্রকাশ করলে তাকে কিল, ঘুষি ও লাথি মারে। ডাক চিৎকার দিলে আলমগীরের কর্মচারীরা এগিয়ে আসলে তাদের হত্যার হুমকি দেয়। এক পর্যায়ে আলমগীরের কর্মচারীরা আশিষ মন্ডলের কাছ থেকে গোডাউনের চাবি ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এঘটনায় আলমগীর হোসেন মুন্সী বাদি হয়ে রেজাউলসহ তিনজনকে আসামি করে রবিবার সকালে চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন। পুলিশ রেজাউলের সহযোগী হারুন বেপারীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেন। মামলা দায়ের পর থেকে রেজাউল ও তার বাহিনীরা মামলা প্রত্যাহারের জন্য নানা ধরনের ভয়ভীতিসহ জীবন নাশের হুমকি প্রদান করে। সোমবার বিকেলে আলমগীর তার ব্যবসায়ী কাজে গৌরনদী বাসষ্ট্যান্ডে আসলে রেজাউলের ৫ থেকে ৬ জন ভাড়াটিয়া অঞ্জাত পরিচয়ের সন্ত্রাসী তাকে অকথ্য ভাষায় গালগাল করে তাকে ও তার পরিবারবর্গকে জীবন নাশের হুমকি দেয়। জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে গতকাল মঙ্গলবার গৌরনদী থানায় আলমগীর হোসেন মুন্সী সাধারন ডায়রী করেছে। হুমকির মুখে ব্যবসায়ীর আলমগীর হোসেন মুন্সীর স্ত্রী ও সন্তানরা টরকী বন্দরের বাসা ছেড়ে গতকাল অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে।
গৌরনদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কালাম বলেন, সিকদার শফিকুল রহমান রেজাউল একজন দুধর্ষ সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলাসহ বহু অভিযোগ রয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারের জোর প্রচেষ্টা চলছে।