পীর সাহেবের বয়ানের মধ্য দিয়ে তিনদিন ব্যাপী মাহফিল শুরু ইসলামী আন্দোলন কোন প্রহসনের নির্বাচনে অংশ গ্রহন করবেনা

দেশের অন্যতম বৃহত্তম মুসলিম জমায়েত চরমোনাইর ৩ দিনব্যাপী বাৎসরিক ওয়াজ মাহফিল রবিবার শুরু হয়েছে। বাদ জোহর আমিরুল মুজাহিদীন পীর সাহেব আলহাজ্ব হযরত মাওলানা মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ মোঃ রেজাউল করীম চরমোনাইর উদ্বোধনী বয়ানের মধ্য দিয়ে মাহফিলের কার্যক্রম শুরু হয়।
চরমোনাইর বাৎসরিক মাহফিলকে ঘিরে কীর্তনখোলা নদীর তীরবর্তী চরমোনাই মাদ্রাসার সুপ্রসস্থ মাঠসহ আশপাশের ময়দান এক দিন আগেই কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে গেছে। লাখো মুসল্লির লাইলা-হা ইল্লাহ জিকিরের ধ্বনিতে মুখরিত এখন গোটা চরমোনাই। মাহফিলের প্রথম দিনে উদ্বোধনী বয়ানে পীর সাহেব চরমোনাই নিয়তের পরিশুদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা করেন। পীর সাহেব তার উদ্বোধনী বয়ানে বলেন, দুনিয়া লাভের কোনো আশা নিয়ে কেউ যদি চরমোনাই এসে থাকেন তাইলে ভুল হবে। আপনারা নিয়ত পরিবর্তন করে আখেরাতের কামাইয়ের উদ্দেশ্যে এখানে সামিল হয়েছেন বলে মনে মনে নিয়ত পরিবর্তন করেন। কারন চরমোনাই’র বাৎসরিক এ মাহফিলের উদ্দেশ্য হচ্ছে একমাত্র আল্লাহকে রাজি খুশি করার জন্য শরিয়ত মোতাবেক জীবন পরিচালনা করা। যারা সু-ফল কাল কেয়ামতের মাঠে পাওয়া যাবে। দুনিয়ার এমপি -মন্ত্রী বা ধন সম্পদ মালিক হওয়ার জন্য নিয়ত করে চরমোনাই এলে উল্টো পাপের ভাগী হবেন। তিন দিন ব্যাপী এ ময়দানে থাকার সময় শুধু আল্লাহ পাক রব্বুল আল-আমীনকে রাজী খুশি করার মত নিয়ত করে আগামীর জীবন পরিচালনা করতে হবে। পরে হক নষ্ট করে স্বার্থপর ও পাপে ভরপুর জীবন থেকে মুক্তির জন্য আল্লাহর রহমত কামনা করতে হবে। সকলের মনে প্রানে নিয়ত থাকতে হবে আমাদের একমাত্র সৃষ্ঠিকর্তা মহান রব্বুল- আল-আমীনকে রাজি খুশী রেখে তার নির্দেশমত জীবন পরিচালনা করতে হবে। কারণ নিয়তের ওপর সকল কাজ নির্ভরশীল। তাই নিয়তকে আগে পরিশুদ্ধ করতে হবে। নিয়ত ভাল না হলে ফল ভাল হবে না। নিয়ত ভাল হলে হেদায়েতের মালিক আল্লাহ তিনি আমাদের হেদায়েত করবেন এবং তার হুকুম ও নিয়ম মেনে জীবন চলার পথে রহমত করবেন।
চরমোনাইর পীর সৈয়দ মোঃ রেজাউল করীম সরকারকে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্ঠির আহ্বান জানিয়ে বলেন সবদলের অংশগ্রহনে সুষ্ঠ নির্বাচন করতে সহায়ক সরকার দরকার। তিনি বলেন ইসলামী আন্দোলন কোন প্রহসনের নির্বাচনে অংশ গ্রহন করবেনা। তাই আন্দোলনে নেতা কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে আগামী নির্বাচনের জন্য নিজ নিজ এলাকায় হাতপাখার বিজয় নিশ্চিত করতে কাজ করার আহবান জানান। ।
উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, পীর সাহেবের ভাই মাওলানা সৈয়দ মোঃ ফয়জুল করীম, মাওঃ সৈয়দ মোঃ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, মাওঃ হাফেজ আহমদ ইউনুস, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, মাওঃ নেছারউদ্দিন প্রমূখ।
চরমোনাই মাহফিলে মুসল্লিদের অবস্থানের জন্য বিশাল দুটি মাঠে সামিয়ানা টানানো হয়েছে। মাহফিলের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ-র‌্যাব ছাড়াও নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় প্রায় কয়েক হাজার স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছে। মাহফিলে আগত মুসল্লিদের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য স্থাপন করা হয়েছে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে হাই ভোল্টেজ জেনারেটর। আগত মুসল্লিদের স্বাস্থ্যসেবায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে ১০০ বেডের একটি অস্থায়ী হাসপাতাল রয়েছে। মাহফিলের বয়ান িি.িপযধৎসড়হধরাং.হবঃ/ষরাব এই ওয়েবসাইটে সরাসরি সম্প্রচার করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ৩ দিনব্যাপী মাহফিলে নিয়মিত, জিকির-আজকার ছাড়াও দ্বিতীয় দিন আজ সোমবার বেলা ১১টায় উলামা ও সূধী সম্মেলন এবং আগামীকাল বেলা ১১টায় ছাত্র গণজমায়েত অনুষ্ঠিত হবে।