বরিশালের আটদফা দাবিতে বাসদের সড়ক অবরোধ

“বিনা পরীক্ষায়, বিনা অক্সিজেনে, বিনা চিকিৎসায় কোন মৃত্যু আমরা চাইনা” শ্লোগানকে সামনে রেখে বরিশালে করোনার নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষায় দীর্ঘ সময় নেয়া, হয়রানি বন্ধ, পিসিআর ল্যাব বাড়িয়ে প্রতিদিন কমপক্ষে এক হাজার পরীক্ষা, করোনা রোগি পরিবহনের জন্য বিশেষ এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস চালুসহ আটদফা দাবীতে করোনা ঝূঁঁকির মধ্যেও বরিশালে সড়ক অবরোধ কর্মসূচী পালন করেছে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ)। সংগঠনের জেলা শাখার উদ্যোগে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত নগরীর সদর রোডের অশ্বিনী কুমার হলের সামনে এই কর্মসূচী পালিত হয়।
এ সময় বাসদের নেতাকর্মীরা সড়ক অবরোধ করে রাস্তায় বসে পড়েন। এতে ব্যস্ততম ঐ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। কর্মসূচী চলাকালে পুলিশ বাসদ নেতাকর্মীদের সড়ক থেকে সরে যাওয়ার অনুরোধ করলেও কোন বল প্রয়োগ করেনি। আন্দোলনকারী নেতাকর্মীরা পুলিশের অনুরোধে সাড়া না দিয়ে অবরোধ কর্মসূচী চালিয়ে যায়।
সড়ক অবরোধ চলাকালীন সময় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বাসদের জেলা কমিটির সদস্য সচিব ডাঃ মনিষা চক্রবর্তী তার বক্তব্যে বলেন, দেশের আটটি বিভাগের মধ্যে করোনা চিকিৎসায় বরিশাল রয়েছে সর্বনিন্মস্থানে। ঢাকায় করোনা পরীক্ষার জন্য ল্যাব রয়েছে ৩৮টি, চট্টগ্রামে নয়টি, সদ্যজাত বিভাগ রংপুর ও ময়মনসিংহে দুইটি। অথচ বরিশাল বিভাগের ছয় জেলার কোটি মানুষের চিকিৎসার ভরসাস্থল বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য পিসিআর ল্যাব রয়েছে মাত্র একটি। সেখানেও রয়েছে নানা সমস্যা।
এসময় ডাঃ মনিষা চক্রবর্তী তার বক্তব্যে প্রশাসনের সকল দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, আজকের এই সড়ক অবরোধ কর্মসূচির মাধ্যমে বরিশালবাসীর দাবীগুলো দ্রুত পুরন করা না হলে আগামিতে হরতাল পালনসহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। এছাড়া তিনি করোনাকালের সম্মুখযোদ্ধা চিকিৎসক, পুলিশ ও সংবাদকর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং আর্থিক প্রনোদনা দেয়ার জন্য জোর দাবি করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে জেলা বাসদ আহ্বায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন সহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন। কর্মসূচী শেষে অশ্বিনী কুমার হলের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে।