বরিশালের বাকেরগঞ্জে চাই ব্যবসায়ী বাবা-ছেলে খুন ॥ ট্রলার ছিনতাই

বরিশালের বাকেরগঞ্জে নদীর তীর থেকে গলাকাটা অবস্থায় পুত্রের মৃতদেহ উদ্ধারের ১৬ ঘন্টা পর পিতার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার সকাল ১০টায় বাকেরগঞ্জ উপজেলার কবাই ইউনিয়নের চর লক্ষ্মীপাশা এলাকার পান্ডব নদীর তীর থেকে ভাসমান অবস্থায় পিতা হেলাল উদ্দিন হাওলাদার (৫৫) এর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় তার ছেলে ইয়াসিন হাওলাদার (২০) এর গলাকাটা মরদেহও ঐ নদীর তীরের একটি ঝোপ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতরা পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলার কলারদোয়ানিয়া গ্রামের বাসিন্দা ও পেশায় মাছ ধরার চাই (ফাঁদ) বিক্রেতা। নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, তারা বিক্রির জন্য গত শনিবার বেশকিছু চাই নিয়ে মায়ের পরশ নামক ট্রলারযোগে বাড়ি থেকে বের হন ছেলে ইয়াসিন ও তার বাবা হেলাল উদ্দিন। শুক্রবার শতরাজ বাজারে চাই বিক্রি শেষে শিয়ালঘুনি হাট যান। সেখান চাই বিক্রি করে কলসকাঠি ফেরার পথে চর লক্ষ্মীপাশা এলাকার পান্ডব নদীর তীরে তাদের খুন করে ট্রলার সহ টাকা-পয়সা ও বেশকিছু চাই ছিনতাই করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার সন্ধ্যায় ছেলে ইয়াসিন হাওলাদারের গলাকাটা মরদেহ চর লক্ষ্মীপাশা এলাকার পান্ডব নদীর তীরের একটি ঝোপ থেকে উদ্ধার করা হয়। শনিবার সকালে তার পার্শবর্তী নদীর তীর থেকে ভাসমান অবস্থায় বাবা হেলাল উদ্দিন হাওলাদারের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তাদের দুজনের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। স্থানীয়রা জানান, ঘটনাস্থলে চাইভর্তি একটি ট্রলার থামতে দেখেন এবং সেটিকে কিছুসময় পরে আবার বরিশালের দিকে চলে যেতে দেখেছেন। কিন্তু এরইমধ্যে যে বাবা ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে তা কেউ বুঝতে পারেনি। প্রথমে ছেলের মরদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা থানা পুলিশকে জানায়। পুলিশ এসে মরদেহটি উদ্ধার করলেও তার কোন পরিচয় জানতে পারেনি। এরপর শনিবার সকাল স্থানীয় এক মেম্বার হেলাল উদ্দিনের মৃতদেহ নদীতে ভাসার খবর পুলিশকে জানায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সে মৃতদেহটিও উদ্ধার করে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ট্রলার, চাই ও টাকা-পয়সা লুটপাটের জন্যই এ হত্যাকান্ড। কারণ কিছু লোক চাই কেনার নামে মাঝপথ দিয়ে তাদের ট্রলারে উঠে পরে। যারা কলসকাঠি যাওয়ার পথে চরলক্ষীপুরে নেমে যাওয়ার কথা ছিলো।
বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ পরিদশর্ক (তদন্ত) নকীব আকরাম জানান, নিহতদের পরিচয় পাওয়া গেছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।
বাকেরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম জানান, এদিকে নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্ত করার জন্য শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।
বরিশাল জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বাকেরগঞ্জ সার্কেল) আনোয়ার সাঈদ বলেন, হয়তো পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে লোকালয় থেকে নিহতদের দূরে নির্জন জায়গায় ফেলে রাখা হয়েছে। হত্যাকারীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে বলেও তিনি জানান।