বরিশালের বাকেরগঞ্জে জোড়া হত্যা মামলার আসামী পুলিশের হাতে গ্রেফতার

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় বাবা-ছেলে হত্যার ঘটনার তিনদিন পর ঢাকার কেরানীগঞ্জ এলাকা থেকে ৩ ডাকাত সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় ডাকাতিকৃত ট্রলারসহ অন্যান্য মালামাল উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় বরিশাল পুলিশ লাইন্সের ইন সার্ভিস সেন্টারে জেলা পুলিশ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম। গ্রেফতারকৃতরা হলো- বরিশালের বাকেরগঞ্জের মোঃ বাদশা হাওলাদার, মোঃ শাহিন খান ও মোঃ ছানি হাওলাদার। এদের মধ্যে ছানির বয়স ১৭ বছর। গ্রেফতারকৃতদের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে পুলিশ সুপার জানান, ট্রলার ডাকাতির উদ্দেশ্যে ঘটনার ৪/৫ দিন আগে থেকেই মাছ ধরার চাই (মাছ ধরার জন্য বাঁশের তৈরী এক ধরনের ফাঁদ) ব্যবসায়ী মোঃ হেলাল উদ্দিন হাওলাদার ও তার ছেলে মোঃ ইয়াসিন হাওলাদারের উপর নজর রাখছিল তারা। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী, গত ৩ জুলাই চাই ক্রেতা সেজে তাদের ট্রলারে ওঠে ডাকাত বাদশা, শাহিন ও ছানি। পরে তারা তাদের পান্ডব নদীর তীরে চরলক্ষ্মীপাশা নামক স্থানে নিয়ে প্রথমে ছেলে ইয়াসিনকে গলা কেটে এবং পরে বাবা হেলালকে পানিতে ডুবিয়ে পেট কেটে হত্যা করে এবং ট্রলার, মোবাইল ফোনসেট, টাকা ও জামাকাপড় নিয়ে পালিয়ে যায়। পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ঢাকার কেরানীগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করে ৬ জুলাই।
উল্লেখ্য, বাকেরগঞ্জের কবাই ইউনিয়নের চরলক্ষ্মীপাশা গ্রামে পান্ডব নদীর পাড় থেকে গত ৩ জুলাই মোঃ ইয়াসিনের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন ৪ জুলাই একই এলাকা থেকে তার বাবা হেলাল উদ্দিনের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় হেলাল উদ্দিনের স্ত্রী তাসলিমা বেগম বাদী হয়ে বাকেরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। হত্যাকান্ডের শিকার ইয়াসিন ও হেলাল উদ্দিন পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর এলাকার বাসিন্দা।