বরিশালে ইউপি নির্বাচনে ৫০টির মধ্যে ৪১টিতে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত

প্রথম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বরিশালের ৫০টির মধ্যে ৪১টিতে চেয়ারম্যান হয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী। অন্য ৯টি ইউপিতে জয় পেয়েছেন জাতীয় পার্টির তিনজন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একজন এবং পাঁচজন স্বতন্ত্র প্রার্থী। বরিশাল জেলার ৯টি উপজেলার ৫০টি ইউনিয়নে সোমবার সকাল ৮টায় শুরু হয়ে ভোট চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। গণনা শেষে রাতে ঘোষণা করা হয় বেসরকারি ফল। বেসরকারি ফলে বরিশালে ইউপি চেয়ারম্যান হলেন যারা, বরিশাল সদর উপজেলার
কাশিপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের কামাল হোসেন লিটন মোল্লা, জাগুয়া ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীকের হেদায়েত উল্লাহ খান, চরবাড়িয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের মাহতাব হোসেন সুরুজ এবং টুঙ্গিবাড়িয়া ইউনিয়নে চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাদিরা রহমান নির্বাচিত হয়েছেন। বাবুগঞ্জ উপজেলার বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল আহসান খান আনারস প্রতীক নিয়ে, কেদারপুর ইউনিয়নে নৌকার নূরে আলম, দেহেরগতি ইউনিয়নে নৌকার মশিউর রহমান এবং মাধবপাশা ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির ছিদ্দিকুর রহমান লাঙল প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। গৌরনদী উপজেলার ৭ ইউনিয়নের মধ্যে ৬ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় জয় লাভ করেছেন। বিজয়ীরা হলো, খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের নূর আলম সেরনিয়াবাত, বাটাজোরের আব্দুর রব হাওলাদার, বার্থীর আব্দুর রাজ্জাক, মহিলারার সৈকত গুহ পিকলু, চাঁদশীর নজরুল ইসলাম এবং নলচিড়ার গোলাম হাফিজ মৃধা। তবে সরিকল ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রতীকের ফারুক হোসেন মোল্লা। বানারীপাড়া উপজেলার ৭ ইউনিয়নের মধ্যে ৫ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় জয় লাভ করেছেন। এরা হলো, উদয়কাঠি ইউনিয়নের রাহাদ আহম্মেদ ননী, বিশারকান্দির সাইফুল ইসলাম শান্ত, ইলুহারের শহিদুল ইসলাম, বানারীপাড়া সদরের আবদুল জলীল ঘরামী এবং সলিয়াবাকপুর ইউনিয়নের সিদ্দিকুর রহমান। এছাড়া ভোটযুদ্ধে চাখার ইউনিয়ন নির্বাচিত হয়েছেন নৌকার মজিবুল হক টুকু এবং বাইশারী ইউনিয়নে নৌকার শ্যামল চক্রবর্তী নির্বাচিত হয়েছেন। বাকেরগঞ্জ উপজেলার দুধল ইউনিয়নে বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় বিজয় লাভ করেছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী গোলাম মোর্শেদ। এছাড়া চরাদি ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকার শফিকুল ইসলাম, দাড়িয়ালে নৌকার শহিদুল ইসলাম হাওলাদার, ফরিদপুরে নৌকার শফিকুর রহমান, কবাই ইউনিয়নে নৌকার জহিরুল হক তালুকদার, নলুয়ায় নৌকার ফিরোজ আলম খান, কলসকাঠিতে নৌকার ফয়সাল ওয়াহিদ মুন্না, গারুড়িয়ায় লাঙল প্রতীকের এসএম কাইয়ুম খান, ভরপাশায় নৌকার আশ্রাফুজ্জামান খোকন, রঙ্গশ্রীতে নৌকার বশিরউদ্দিন এবং পাদ্রীশিবপুর ইউনিয়নে নৌকার জাহিদুল হাসান নির্বাচিত হয়েছেন। হিজলা উপজেলার বড়জালিয়া ইউনিয়নে নৌকার এনায়েত হোসেন তালুকদার, গুয়াবাড়িয়ায় নৌকার শাহজাহান তালুকদার, হরিনাথপুরে ঘোড়া প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী তৌফিকুর রহমান এবং মেমানিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীক নিয়ে নাসির উদ্দিন নির্বাচিত হয়েছেন। মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন এবং ভাষানচর ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকার নজরুল ইসলাম চুন্নু। মুলাদী উপজেলার সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের প্রার্থী কামরুল আহসান বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় বিজয় লাভ করেছেন। এছাড়া নাজিরপুর ইউনিয়নে নৌকার মোস্তাফিজুর রহমান, সফিপুরে নৌকার আবু মুসা, গাছুয়ায় নৌকার জসীম উদ্দিন, চরকালেখায় লাঙল প্রতীকের মিরাজুল ইসলাম এবং কাজিরচর ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রতীকের মন্টু বিশ্বাস। উজিরপুর উপজেলার শোলক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল হালিম সরদার বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় জয় লাভ করেছেন। এছাড়া সাতলা ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী শাহীন হাওলাদার, জল্লায় নৌকা প্রতীকের বেবী রানী দাস, ওটরায় নৌকার এম এ খালেক এবং বড়াকোঠা ইউনিয়নে নৌকার সহিদুল ইসলাম নির্বাচিত হয়েছেন।
বরিশাল জেলা প্রশাসন থেকে গত সোমবার গভীর রাতে কেন্দ্রিয় দপ্তরে প্রেরিত এক তালিকা থেকে এই বিজয়ী চেয়ারম্যানদের নাম পাওয়া গেছে।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. নুরুল আলম জানান, ৫০টি ইউনিয়নে নির্বাচিতদের তালিকা রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়েছে।