বরিশালে গত ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্তে ৩ ও উপসর্গে ২জনের মৃত্যু

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে গত ২৪ ঘন্টায় করোনা ওয়ার্ডে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩ জন রোগী ও আইসোলেশন ওয়ার্ডে উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২ জন রোগী মৃত্যুবরণ করেন। করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করা ২ জনের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য আরটি পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন শেবাচিম হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. আব্দুর রাজ্জাক। এদিকে রবিবার দুপুর পর্যন্ত শেবাচিম হাসপাতাল থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় এ হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে নতুন ১৬ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। এছাড়া করোনা ও আইসোলেশন ওয়ার্ড থেকে মোট ৫৮ জন রোগী ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি চলে গেছেন। বর্তমানে করোনা ওয়ার্ডে ৩৪ জন রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গত বছরের মার্চ থেকে এ পর্যন্ত শেবাচিম হাসপাতালের আইসোলেশন ও করোনা ওয়ার্ডে ৩ হাজার ৮১৮ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন, যারমধ্যে করোনায় আক্রান্ত ছিলেন ১ হাজার ১৩৭ জন। আর এ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মোট রোগীর মধ্যে ১৬২ জন করোনায় আক্রান্ত এবং ৩৯৯ জন রোগী উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। এনিয়ে এ হাসপাতালের আইসোলেশন ও করোনা ওয়ার্ডে মোট ৫৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে।
এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় বরিশাল বিভাগে ২০৮ জনের করোনা পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর এ সময়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তিনজন। এনিয়ে বিভাগে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ২৪২ জন। মৃত্যুবরণকারী তিন জন হলেন বরিশালের উজিরপুর উপজেলার বাসিন্দা শহীদুল (৪৮), বরিশাল নগরীর নবগ্রাম রোড এলাকার বাহাউদ্দিন গাজী (৭০) ও রুপাতলী এলাকার সানজিদা রহমান (৫০)। রবিবার সকালে বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য কার্যালয়ের পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস জানান, বরিশালে বর্তমানে করোনা সংক্রমণের হার বেশি। এ অবস্থায় শুধু করোনার টিকা গ্রহণ করলেই চলবে না সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় বরিশাল বিভাগের সবচেয়ে বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে বরিশাল জেলায় ১০০ জন। এরপর ঝালকাঠীতে ২৯ জন, পটুয়াখালীতে ২৮ জন, ভোলায় ২৩ জন, পিরোজপুরে ২১ জন ও বরগুনায় ৭ জন। এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় বরিশাল বিভাগে করোনা আক্রান্ত ৩০ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এছাড়া বর্তমানে বিভাগে করোনা আক্রান্ত দুই হাজার ৩০৯ জন রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এরমধ্যে কিছু রোঘী হাসপাতালে ও কিছু রোগী বাসায় চিকিৎসাধীন। এদিকে বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ২৪২ জন রোগী মৃত্যুবরণ করেছেন। যারমধ্যে বেশি মারা গেছেন বরিশাল জেলায় ১০৩ জন। এরপর পটুয়াখালীতে ৪৭ জন, পিরোজপুরে ২৯ জন, ঝালকাঠীতে ২৩ জন, বরগুনায় ২২ জন ও ভোলায় ১৮ জন।
উল্লেখ্য, গত বছরের ৯ মার্চ বরিশাল বিভাগের মধ্যে সর্বপ্রথম নারায়ণগঞ্জ ফেরত পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার এক শ্রমিকের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়।