বরিশালে হেফাজতে ইসলামের সমাবেশে বক্তারা ৬ এপ্রিলের লংমার্চে বাধা দিলে দক্ষিণাঞ্চল অচল করে দেয়া হবে

আর.এম মাসুদ ॥ বুধবার বরিশাল নগরীর বাজার রোডস্থ খাজা মঈনউদ্দিন মাদ্রাসা মিলনায়তনে হেফাজতে ইসলাম বরিশাল মহানগরের উদ্যোগে সর্বস্তরের ওলামায়ে কেরাম ও ইমাম সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়। এতে বরিশাল মহানগরের কওমী, আলীয়া মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দ ও ইমামগণ অংশগ্রহণ করেন। তারা জীবন দিয়ে হলেও ৬ এপ্রিল লংমার্চ বাস্তবায়ন করা হবে বলে শপথ গ্রহণ করেন। সমাবেশে বক্তাগণ বলেন, আমাদের আন্দোলন সরকারের বিরুদ্ধে নয় বরং নাস্তিক মুরতাদদের বিরুদ্ধে। তাই সরকারের উচিত হবে লংমার্চে বাঁধা না দেয়া। এরপরও যদি সরকার লংমার্চে বাঁধা দিয়ে নাস্তিক মুরতাদদের পক্ষাবলম্বন করে তবে এ সরকারকে নাস্তিক-মুরতাদ সরকার বলে ঘোষণা দেয়া হবে এবং তৌহিদি জনতা এ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়বে। নাস্তিক মুরতাদদের বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনের ডাক দিয়ে আল্লামা আহমদ শফী ইসলামী জনতার আমীরুল মোমেনীনে পরিণত হয়েছেন। সুতারং তার আহবানে সারা দিয়ে লংমার্চে অংশগ্রহণ করা সকল মুসলমানদের ঈমানী দায়িত্ব। এ ঈমানী দায়িত্বকে অস্বীকার করে যারা নাস্তিক মুরতাদদের সমর্থন জানাবে, বিভ্রান্তি ছড়াবে, চুপ থাকবে এবং আন্দোলন কার ঘরে উঠবে এ ধরণের হিসাব কষবে তারা বোবা শয়তান, নাস্তিক মুরতাদদের দোসর, আবু জেহেল, আবু লাহাবের উত্তরসূরী, এদেরকেও প্রতিহত করা হবে।
সরকারের উদ্দেশ্যে বক্তারা বলেন, নাস্তিক মুরতাদরা হলো কালসাপ, দুধ কলা দিয়ে এদের পুষবেন না, এরা একদিন আপনাদেরকেও ছোবল মারতে দ্বিধা করবে না। হেফাজতে ইসলামের নেতৃবৃন্দ বলেন, আমাদের শান্তিপূর্ন লংমার্চ কর্মসূচীতে কোন বাধা দেবেন না, যদি বাধা দেন তবে গোটা দক্ষিণাঞ্চল অচল করে দেয়া হবে।
সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন হেফাজতে ইসলামের বরিশাল শাখার আহবায়ক মাওঃ ওবাইদুর রহমান মাহবুব। বক্তব্য রাখেন সচিব মাওলানা আবদুল হালিম, মাওলানা কাজী আবদুল মান্নান, মাওলানা রুহুল আমিন খান, অধ্যাপক আবুল কাশেম শাহজাহান, মাওলানা মীর্জা নূরুর রহমান বেগ, মাওলানা হাফেজ নূরুল আমিন, মাওলানা শামসুল আলম, মাওলানা আবদুল খালেক পীর সাহেব, মাওলানা সাব্বির আহমদ, মাওলানা মোজাম্মেল হোসাইন, মাওলানা জামাল উদ্দিন ফারুকী, মাওলানা গোলাম মোস্তফা, মাওলানা কামাল উদ্দিন মঈনী, মাওলানা মাহমুদুল হক, মাওলানা তৈয়্যব আলী কাসেমী প্রমূখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন মুফতি মাওলানা সুলতান মাহমুদ।
সমাবেশ শেষে শত শত তৌহিদী জনতার একটি বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।