বরিশাল আঞ্চলিক কর ভবনে অগ্নিকান্ড ॥ পুড়ে গেছে তথ্য সেবা কেন্দ্রের গুরুত্বপুর্ণ কাগজপত্র

বরিশাল কর ভরনে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে বড় ধরনের ক্ষতির কবল থেকে বেঁচে গেছে কর অঞ্চল বরিশাল ভবন। আগুনে ঐ ভবনের দ্বিতীয় তলার তথ্য সেবা কেন্দ্রে পুড়ে গেলেও ফায়ার সার্ভিসের তৎপরতায় রক্ষা পেয়েছে অন্যান্য তলায় থাকা গুরুত্বপূর্ন নথিপত্র। তবে আগুনের ধোয়ায় গুরুতর অচেতন হয়ে পড়া অতিরিক্ত কর কমিশনার শাওন চৌধুরীকে ভর্তি করা হয়েছে শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। গত সোমবার দিবগাত রাত ৩টার দিকে নগরীর ক্লাব রোডের কর অঞ্চল বরিশাল ভবনের দ্বিতীয় তলার তথ্য সেবা কেন্দ্রে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ৩টার দিকে আগুনের কুন্ডলী এবং ধোয়া দেখে ফায়ার সার্ভিসকে জানান তারা। পরে তাদের দেয়া খবরে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রনের কাজ শুরু করে।
ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, আগুনে ভবনের চতুর্থ তলায় আটকে পড়া অতিরিক্ত কর কমিশনার শাওন চৌধুরী অচেতন হয়ে পড়লে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরন করেন তিনি সহ অন্যান্যরা।
বরিশাল ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মো. ফারুক সিকদার জানান, কর ভবনের দ্বিতীয় তলার শীতাতপ নিয়ন্ত্রত মেশিন থেকে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করছেন তারা। দ্রুত আগুন নিভিয়ে ফেলায় বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে কর ভবন। আগুন ছড়িয়ে পড়লে বড় বিপর্যয় হওয়ার আশংকা ছিলো বলে ধারনা তাদের।
বরিশাল কর অঞ্চলের উপ-কর কমিশনার মো. মনজুর রহমান জানান, আগুনে কর ভবনের দোতলার তথ্য ও সেবা কেন্দ্রের ৩টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মেশিন, ৩টি কম্পিউটার, ২ আলমিরা, ১টি ফ্রিজ, কিছু ফাইল ও কাগজপত্র এবং অফিসের সাঁজসজ্জা পুড়ে গেছে। তবে প্রাথমিকভাবে নথিপত্র পুড়ে যাওয়ার পরিসংখ্যান দিতে পারেনি তারা। আগুন পুরো ভবনে ছড়িয়ে পড়লে গুরুত্বপূর্ন কর নথিপত্র রক্ষা করা সম্ভব হতো না বলে আশংকা করেন সহকারি কর কমিশনার এসএম গাউসইনাজ।
এদিকে শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন জানান, ধোয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অতিরিক্ত কর কমিশনার শাওন চৌধুরীর শ্বাসনালীতে সমস্যা দেখা দিয়েছে। তাকে যথাযথ চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তবে তিনি এখন আশংকামুক্ত আছেন।