বরিশাল জেলা প্রশাসক ভ্রাম্যমান আদালতের পৃথক অভিযান

বরিশালে শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিতকরন সংক্রান্ত ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রমে বিভ্রান্তি ছড়ানোর দায়ে নগরীর বাংলা বাজার এলাকায় এক ব্যক্তিকে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়া শারীরিক দূরত্ব না মেনে দোকানে আডড্ডা সহ গনজমায়েতের সুযোগ করে দেয়ায় নগরীর আমতলা মোড় ও সাগরদী ব্রাঞ্চ রোডে ২ দোকানীকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত। এছাড়া পৃথক ভ্রাম্যমান আদালত বিভিন্ন সড়কের মোড়ে, পার্কে, টিসিবি ও খাদ্য বিভাগের পন্য বিক্রির স্থানে জটলা ছত্রভঙ্গ করে করোনা সংক্রামন এড়াতে সবাইকে নিজ নিজ ঘরে থাকার জন্য হ্যান্ড মাইকে প্রচারনা চালায়। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান ও মো. নাজমুল হুদার নেতৃত্বে সোমবার সকাল থেকে নগরীর বিভিন্ন স্থানে এই পৃথক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়। জেলা প্রশাসকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমান আদালত পুলিশের সহায়তায় নগরীর সদর রোড, বাংলাবাজার, চৌমাথা, নথুল্লাবাদ ও কাশীপুর এলাকায় অভিযান চালায়। নগরীর বাংলাবাজার এলাকায় গনজমায়েত বিরোধী এবং শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিতকরন সংক্রান্ত কার্যক্রম চলাকালে এক ব্যক্তি ভ্রাম্যমান আদালতের কর্মকান্ড নিয়ে নেতিবাঁচক কথাবার্তা বলে এবং বিভ্রান্তি ছড়ানোর দায়ে অলিউর রহমান চিশতি (৪৫) কে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দেন। দন্ড ঘোষনার পরপরই তাকে কেন্দ্রিয় কারাগারে নিয়ে যায় পুলিশ। অপরদিকে র‌্যাবের সহায়তায় মো. নাজমুল হুদার নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমান আদালত নগরীর আমতলা, সাগরদী, রূপাতলী ও কালিজিরা এলাকায় অভিযান পরিচালনাকালে যেখানেই গনজমায়তে দেখেন সেখানেই থেমে থেমে করোনা এড়াতে সবাইকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে নিজ নিজ ঘরে থাকতে উৎসাহিত করেন। নগরীর আমতলা মোড়ে ও সাগরদী ব্রাঞ্চ রোডে মুদী কাম চায়ের দোকানে গনজমায়েত সৃস্টি করায় জনগনকে বুঝিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয় এবং যথাক্রমে দুই দোকান ফিরোজ স্টোরকে ৩ হাজার এবং আইউব আলী স্টোরকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমান আদালত। জনস্বার্থে এই অভিযান চলবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক এসএমস অজিয়র রহমান