বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসনিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ

 বরিশাল টুডে ॥ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসনিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চাকুরী দেওয়ার নামে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাকুরী দিতে না পেরে এক কাউন্সিলরের কাছে ঘুষের টাকা নগর ভবনে বসে ফেরত দেওয়ার সময় বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। ঘটনাস্থলে থাকা সাংবাদিকরা ঘুষের টাকা ফেরত দেওয়ার ছবি তুললে টাকা রেখেই দৌড়ে পালিয়ে যান ঐ কর্মকর্তা। রবিবার দুপুরে প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ আবুল হোসেনের দপ্তরে এ ঘটনায় সিটি কর্পোরেশনে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়।

সিটি কর্পোরেশনের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মরতুজা আবেদীন জানান, সিটি কর্পেরেশনের ওয়ার্ড পরিচ্ছন্ন কর্মি নিয়োগ প্রার্থীদের কাছ থেকে ঐ কর্মকর্তা বিভিন্ন অংকের অর্থ গ্রহণ করেন। এরমধ্যে ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাসুদ আহম্মেদের কাছ থেকে ৩ লাখ টাকা ঘুষ নেন। গত সপ্তাহে ঐ পদের জন্য কাউন্সিলর মরতুজা আবেদীন নিজে উপস্থিত থেকে প্রার্থীর টাকা প্রশাসনিক কর্মকর্তার হাতে তুলে দেন। শুক্রবার ঐ পদের নিয়োগ পরীক্ষা হলেও মাসুদ আহম্মেদকে চাকুরী দিতে ব্যর্থ হয় আবুল হোসেন। ওয়ার্ড কাউন্সিলর অভিযোগ করেন বেশি টাকা নিয়ে অন্য এক জনকে প্রশাসনিক কর্মকর্তা চাকুরী দিয়েছেন বলে তার কাছে তথ্য রয়েছে।

রবিবার দুপুরে ঘুষের টাকা ফেরত দেয়ার জন্য কাউন্সিলর মরতুজা আবেদীনকে খবর দেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা আবুল হোসেন। দুপুরে তিনি প্রশাসনিক কর্মকর্তার কার্যালয়ে এলে তাকে দু লাখ টাকা দেওয়া হয়। খবর পেয়ে কর্পোরেশনে থাকা কয়েক ফটো সাংবাদিক টাকা দেওয়ার ছবি তুললে টাকা ফেলেই দৌড়ে পালিয়ে যান প্রশাসনিক কর্মবর্তা আবুল হোসেন। তবে মোবাইল ফোনে প্রশাসনিক কর্মকর্তা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, পরিকল্পিতভাবে তাকে ফাঁসানোর জন্যই ঘুষ দেওয়ার নাটক করা হয়েছে। তিনি বলেন, কিছু টাকা কাউন্সিলর তাকে গুনতে দিয়ে সাংবাদিক এনে ছবি তুলিয়েছেন।  এটা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে মন্তব্য করেন আবুল হোসেন।