বাকেরগঞ্জের ডিংগারহাট- খয়রাবাদের রাস্তা বেহাল

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার গারুড়িয়া ইউনিয়নের ডিংগারহাট -খয়রাবাদ বাজার পর্যন্ত এলজিইডির প্রায় চার কিলোমিটার পাকা ইটের রাস্তাটির ইট উঠে ব্যপক খানাখন্দ সৃষ্টি হয়েছে। এতে সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
বাকেরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) অর্থায়নে এই রাস্তাটি ডিংগার হাট থেকে খয়রাবাদ বাজার পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি ইটের সোলিং দিয়ে পাকা করা হয় কিন্তু রাস্তাটির অধিকাংশ যায়গায় ইট না থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয় এছাড়াও উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগের জন্য এ ইউনিয়নবাসীর চলাচলের কারণে সড়কটির গুরুত্ব অনেক বেশী।
এ সড়কে চলাচলকারী খয়রাবাদের ব্যবসায়ী আল- আমিন খন্দকার বলেন, এ সড়ক দিয়ে মুমূর্ষু কোনো রোগীকে উপজেলা কিংবা জেলা শহরে যানবাহনে করে চিকিৎসার জন্য নিতে হলে ঝাঁকুনিতে রোগীর অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যায় তাছাড়া বৃষ্টির মৌসুমে চলাচলের জন্য রাস্তাটি সম্পুর্ন অনুপযোগী হয়ে যায়।
অটোচালক হায়দার আলী বলেন, সড়কটি মেরামত না করায় অনেক দিন ধরেই এ পথে অটো চালাতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। চার কিলোমিটার সড়ক পাড়ি দিতে তিনগুন সময় লাগছে। তার পরও কখনো কখনো চাকা গর্তে পড়ে যায়। বিকল্প পথ না থাকায় দুর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়েই যাতায়াত করতে হচ্ছে।
কাঁচামাল ব্যবসায়ী আঃ হাই বলেন, আগে শহর থেকে কাঁচামাল কিনে আনতে মণপ্রতি যে ভাড়া দিতে হতো এখন রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ভাড়া দ্বিগুণ হয়েছে। অটোরিকশাচালক আবদুস সালাম বলেন, সড়ক যখন ভালো ছিল লোকজন অটোরিকশায় চলাচল করত। এখন সড়কের অবস্থা বেহাল হওয়ায় কেউ আর অটোরিকশায় চলাচল করতে চায় না। মালামালও বহন করা যায় না। গর্তের মধ্যে চাকা আটকে ভেঙে যায়, মাঝেমধ্যে দুর্ঘটনাও ঘটে।
উপজেলার গারুড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান এস এম কাইউম খান বলেন, রাস্তার কার্পেটিংয়ের কাজের টেন্ডার হয়েছে কার্যক্রমও শুরু হয়েছে।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) উপজেলা প্রকৌশলী আবুল খায়ের মিয়া বলেন, রাস্তাটির কাজ চলমান আছে কাজের অগ্রগতি অনেকদুর এগিয়েছে তবে হঠাৎ অত্র অঞ্চলে ব্যাপক বৃষ্টি পাতের কারনে মালামাল পরিবহনে সমস্যা থাকায় কাজের গতি থেমে আছে তবে কয়েকদিন পর ঠিকাদার আবার কাজ শুরু করতে পারবে বলে আশা রাখি।