বিসিসি নির্বাচন ॥ পাঁচ মেয়র প্রার্থী বৈধ ॥ বাদ পরেছে ৪ কাউন্সিলর প্রার্থী ॥ আজ বিএনপি’র একক মেয়র প্রার্থী ঘোষণা

শাহীন হাফিজ ॥ বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের (বিসিসি)’র নির্বাচনে মনোনয়পত্র দাখিল করা ৫ জন মেয়র প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া ৪৯ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরের মধ্যে একজন ও ৩০ টি ওয়ার্ডে সাধারন কাউন্সিলর পদে জমা দেয়া ১৪৫ জনের মধ্যে তিনজন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেলে বরিশাল আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মজিবর রহমান বাছাইয়ের পর এ তথ্য জানিয়েছেন।

মেয়র পদে বৈধ প্রার্থীরা হলেন-১৪ দল ও সম্মিলিত নাগরিক কমিটির মনোনীত প্রার্থী আলহাজ শওকত হোসেন হিরন, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মহানগর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহমুদুল হক খান মামুন, মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহীন, বরিশাল জেলা দক্ষিন বিএনপির সভাপতি আহসান হাবীব কামাল ও জেলা বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক এবায়দুল হক চাঁন। গত ১২ মে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন পর্যন্ত এ পাঁচ জন প্রার্থীই বরিশাল আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বুধবার সকাল ১০টা থেকে প্রার্থীদের মনোয়নপত্র বাছাই করার কাজ শুরু করা হয়। প্রথমেই সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে মনোয়নপত্র জমা দেয়া ৪৯ জন ও পরবর্তীতে ৫জন মেয়র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাছাই শেষে সাধারন কাউন্সিলর পদে জমা দেয়া ১৪৫ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাছাইর কাজ শুরু করা হয়। বিকেল ৫টা পর্যন্ত এ বাছাই কার্যক্রমে ৫ জন মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ ও ত্র“টি থাকায় ৪৯ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরের মধ্যে একজন ও ৩০ টি ওয়ার্ডে সাধারন কাউন্সিলর পদে জমা দেয়া ১৪৫ জন প্রার্থীর মধ্যে তিনজন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়।

মনোনয়নপত্রে ত্র“টি থাকার কারনে বাতিলকৃত প্রার্থীরা হলেন-৪,৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী আলম তাজ, ১ নং ওয়ার্ডের সাধারন কাউন্সিলর প্রার্থী সৈয়দ সাইদুল হাসান, ২ নং ওয়ার্ডের সাইদুল ইসলাম হিরু ও আহছান উল্লাহ।
বরিশাল আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মজিবর রহমান জানান, বুধবার মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের প্রথম দিনে ৫ জন মেয়র প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র-ই বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া একজন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ও তিনজন সাধারন কাউন্সিলরের মনোনয়নে ত্র“টি থাকায় তা বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, বৃহস্পতিবার ৩০ টি ওয়ার্ডে সাধারন কাউন্সিলর পদে জমা দেয়া অন্যান্য প্রার্থীদের মনোনয়ন বাছাই করা হবে। যে কার্যক্রম চলবে (আজ বৃহস্পতিবার) বিকেল ৫টা পর্যন্ত। তিনি আরো জানান, আগামী ২৬ মে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন ও ১৫ জুন এ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি একক প্রার্থী দিয়ে আওয়ামী লীগকে মোকাবেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ জন্য এখানকার ৩ মেয়র প্রার্থীকে ঢাকায় তলব করা হয়েছে। ৩ প্রার্থীকে নিয়ে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন দু’ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহার করে একক প্রার্থী মনোনীত করে তার পক্ষে সকল- নেতাকর্মীকে কাজ করার নির্দেশ দিবেন। তবে এ প্রক্রিয়াটি কৌশলগত কারনে অনেকটা গোপনেই করা হচ্ছে। বিএনপি নেতারা জানান- সাবেক মেয়র ও জেলা বিএনপির সভাপতি আহসান হাবিব কামালকে প্রার্থী করার বিষয়টি প্রায় চুড়ান্ত। তবে ঐ প্রার্থীকে বিএনপি বা ১৮ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসাবে পরিচয় না দিয়ে নাগরিক পরিষদের প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনের মাঠে নামানো হবে। দলীয় ফোরামে মনোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করার জন্য ১৮ দলের নেতা-কর্মীরা কাজ করবেন। বিশেষ করে বিএনপির প্রভাবশালী নেতাদের ভূমিকা কেন্দ্রীয় কমিটি মনিটরিং করবেন। কারন বিগত দিনের কোন্দল কাজে লাগিয়ে দলের প্রার্থীকে পরাজিত করতে যদি কেউ নেপথ্যে কলকাঠী নাড়েন তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে দলের একাধিক নেতা জানান।