হিজলায় দেড় যুগের অধিক সময় ধরে শিকল বন্দী যুবক

বরিশালের হিজলা উপজেলায় মো. সাইদুল ইসলাম নামে এক যুবক দেড় যুগেরও অধিক সময় ধরে শিকল বন্দী রয়েছেন। মাত্র ১৪ বছর বয়সে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে প্রায় ১৮ বছর ধরে অস্বাভাবিক জীবন যাপন করছে সাইদুল। ১৫ বছর আগে পিতা মো. কাশেম আলী মৃধা মারা যায়। এর পর থেকেই বৃদ্ধা মা অভাবের সংসারের হালধরতে বাড়িতে হোগলা বুনার কাজ করে খাবার জোটান। মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলের টাকার অভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না। উপজেলার গুয়াবাড়িয়া ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের মৃত কাশেম আলী মৃধার মেজো ছেলে সাইদুল। প্রায় ১৮ বছর ধরে মানসিক সমস্যা দেখা দিলে তাকে শিকল বন্দী করে রাখা হয়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙ্গাচোরা একটি ঘরের পাশে উপরে তিনটি টিনের চালার নিচে পায়ে শিকল দিয়ে একটা খুটির সাথে বেধে রাখা হয়েছে সাইদুলকে। ঝড়-বৃষ্টি-শীতেও ঐ তিনটি টিনের চালার খোলা ঘরে শিকল বন্দী হয়ে থাকতে হয় তাকে। পাশেই ছাপড়ার সঙ্গেই লাগানো জরাজীর্ণ একটি ঘরে সাইদুলের মা বকুল বেগম বসবাস করেন। ৩ ভাই আর ১ বোনের মধ্যে সাইদুল মেজো। সাইদুলের মা মোসা. বকুল বেগম বলেন, আমার ছেলেটা অনেক ভালো ছিল। ছোট বেলায় ওর বাবা মারা গেছে। অনেক কষ্ট করে নিজের লেখাপড়ার খরচ জোগাতো সে। কিন্তু হঠাৎ করেই মাথা খারাপ হয়ে যায়। কি কারণে এমনটা হলো বলতে পারি না। প্রাথমিক অবস্থায় ফকির, কবিরাজ দিয়ে ঝাড়ফুক আর গ্রাম্য চিকিৎসা করানো হয়েছে। যদি ছেলেটা কোথাও চলে যায় বা কাহারও কোন ক্ষতি করে এই ভয়ে বাধ্য হয়েই পায়ে শিকল পড়িয়ে রাখছি। স্থানীয় বাসিন্দা কাজী আঃ ওয়াহেদ জানান, অতি দরিদ্র পরিবারটির পক্ষে সাইদুলের চিকিৎসা করানো সম্ভব নয়। হয়তো উন্নত চিকিৎসা পেলে সে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবে। হিজলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বকুল চন্দ্র কবিরাজ বলেন, ১৮ বছর ধরে যুবকটি শিকলে বন্দী অবস্থায় রয়েছে। এটা খুব দুঃখজনক ঘটনা। যদি পরিবারটি রাজি থাকে তাহলে অবশ্যই পাবনা মানসিক হাসপাতালে নিয়ে তার উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।