হিজলায় বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন ॥ রবিবার হরতাল

বরিশাল টুডে ॥ বরিশালের হিজলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্থগিত থাকা তিনটি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী দেওয়ান মো. শহিদ উল্লাহ ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ নূরুল আলম রাজু। ব্যাপক কারচুপি ও জালভোটের অভিযোগ এনে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে তারা এই ঘোষণা দেন। একই সঙ্গে ভোট ডাকাতির প্রতিবাদে রোববার হিজলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের আহবান করেছে স্থানীয় বিএনপি। বিএনপি সমর্থিত উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী দেওয়ান মো. শহিদ উল্লাহ অভিযোগ করেন, সকাল থেকেই আওয়ামীলীগ সমর্থকরা তিনটি ভোট কেন্দ্র দখল করে নিজেদের প্রার্থী সুলতান মাহমুদের হেলিকপ্টার প্রতীকে সিল মারছে। কিন্তু এসব দেখেও প্রশাসন নিরব ভূমিকায় রয়েছে।

তিনি আরো জানান, নির্বাচনে সবার চেয়ে তিনি বেশী ভোট পেয়ে এগিয়ে থাকায় আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থীর পরাজয় নিশ্চিত জেনে কারচুপি করছে। তাই তিনি এই নির্বাচন বর্জন করছেন। এ অভিযোগের বিষয়ে জেলা রিটানিং অফিসার মো. দুলাল তালুকদার জানান, ‘আমি এবং পুলিশ সুপার এখন হিজলাতেই অবস্থান করছি। তিনটি ভোটকেন্দ্রেই ভোটারদের উপস্থিতি বেশ সন্তোষজনক। এছাড়া কোন অনিয়মও চোখে পড়েনি।’ তিনি আরো বলেন, ‘তবে কেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন এ সম্পর্কে আমি ওয়াকিবহাল নই।’ উল্লেখ্য,গত ১৯ মার্চ তৃতীয় দফায় হিজলা উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই দিন কারচুপির অভিযোগে উপজেলার বড়জালিয়া ইউনিয়নের ৩টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহন স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। ২৭টি কেন্দ্রের ঘোষিত ফলাফলে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী দেওয়ান মো. শহীদুল্লাহ ৮ হাজার ২১৭ ভোট, বিএনপি’র বিদ্রোহী আব্দুল গফ্ফার তালুকদার ৮ হাজার ১২১, ইসলামী আন্দোলনের সৈয়দ মো. মোজাম্মেল ৭ হাজার ২৭১ এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত সুলতান মাহমুদ টিপু ৭ হাজার ১৭৩, জামায়াত সমর্থিত আবুল হাসেম মো. বশিরুল্লাহ ৬ হাজার ৮৫৫ এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী বেলায়েত হোসেন ঢালী পেয়েছেন ৬ হাজার ৮৫৫ ভোট। স্থগিত ৩ কেন্দ্রে মোট ভোটার ৯ হাজার ২৭ জন।