২২ হাউজিং কোম্পানির কার্যক্রমে স্থিতাবস্থা

ঢাকার পূর্বাচল হাউজিং প্রকল্পের পাশে গাজীপুরের কালিগঞ্জ উপজেলার ২২টি আবাসন কোম্পানি কর্তৃক জলাশয়, খাল-বিল ও নিচু জমি অবৈধভাবে ভরাট কার্যক্রমের ওপর স্থিতাবস্থা জারি করেছে হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে এসব হাউজিং কোম্পানি যাতে সেখানকার জলাশয়, নিচুজমি ও পুকুর অবৈধভাবে মাটি ভরাট ও দখল না করতে পারে সেজন্য স্থানীয় প্রশাসনকে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। দুই মাসের মধ্যে আদালতের আদেশ বাস্তবায়ন করে এ সংক্রান্ত অগ্রগতি প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল করতে গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার, কালিগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) বলা হয়েছে। এ সংক্রান্ত এক আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ রবিবার এ আদেশ দেয়। স্থিতিবস্থা জারি করা হয়েছে সেসব কোম্পানি হলো: এজি প্রপার্টিজ লিমিটেড, ইউনাইটেড পূর্বাচল ল্যান্ডস লিমিটেড, নাভানা রিয়েল এস্টেট লিমিটেড, বিশ্বাস বিল্ডার্স লিমিটেড, রূপায়ন ল্যান্ডস লিমিটেড, নীলাচল হাউজিং লিমিটেড, বাগান বিলাস, আদর্শ আইডিয়াল লিমিটেড, তেপান্তর হাউজিং, মেট্টোপলিটন ক্রিশ্চিয়ান কো-অপারেটিভ হাউজিং, মঞ্জিল হাউজিং এন্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড, শিকদার রয়েল সিটি, কপোতাক্ষ গ্রীন সিটি, ডিভাইন হোল্ডিং লিমিটেড, স্বর্ণ ছায়া রিয়েল এস্টেট, শতাব্দি হাউজিং, ভিশন-২১ এন্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড, ওশান হ্যাভেন লিমিটেড, এস.এফ.এল চন্দ্রিমা লিমিটেড, গ্রাম্প ইন্টারন্যাশনাল, নর্থ-সাউথ হাউজিং এবং ফেয়ার ডিল শিপিং লিমিটেড।

এসব কোম্পানি কর্তৃক অবৈধভাবে মাটি ভরাট ও দখল কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে সম্পূরক আবেদন দাখিল করেন হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ।

শুনানিতে তিনি বলেন, ‘পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ও জলাধার সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি ব্যাতীত জলাশয়, খাল-বিল ও পুকুর ভরাট করা যাবে না। কিন্তু কোনো ধরনের সরকারি অনুমতি ছাড়াই এসব কোম্পানি অবৈধ দখল ও মাটি ভরাট কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত। যা পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে।

এছাড়া সাইনবোর্ড লাগিয়ে তারা সাধারণ মানুষকে প্রতারিত করছে। এ পর্যায়ে আদালত বলেন, ‘প্রশাসনের সামনে কিভাবে এসব অবৈধ দখল ও ভরাট কার্যক্রম চলে? তারা কি কোনো পদক্ষেপ নেয় না। শুনানি শেষে হাইকোর্ট উপরোক্ত আদেশ দেয়।’

প্রসঙ্গত, গত বছরের ১২ নভেম্বর রিটকারী এই সংগঠনের আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ ও গাজীপুরের কালিগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার ১৬ টি আবাসন কোম্পানি কর্তৃক অবৈধভাবে মাটি ভরাট ও দখল কার্যক্রমের ওপর স্থিতিবস্থা জারি করেছিলো।